মারা গেলেন সেই মসজিদের ইমামও, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২১

প্রকাশিত: ১১:৩৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০ | আপডেট: ১১:৩৮:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০
মারা গেলেন সেই মসজিদের ইমামও, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২১

নারায়ণগঞ্জের পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদে একসঙ্গে ছয়টি এসির বিস্ফোরণের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২১ জনে দাঁড়িয়েছে। তারা সবাই রাজধানীর শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) রাতে মারা যান ওই মসজিদের ঈমাম আবদুল মালেক (৫৫)। তিনিসহ এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ২১ জন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক চিকিৎসক ডা. পার্থ শঙ্কর পাল।

মৃতদের মধ্যে যাদের নাম জানা গেছে তারা হলেন মসজিদের ইমাম আব্দুল মালেক (৫৫), রিফাত (১৮), মোস্তফা কামাল (৩৪), জুবায়ের (১৮), সাব্বির (২১), কুদ্দুস ব্যাপারী (৭২), হুমায়ুন কবির (৭০), ইব্রাহিম (৪৩), মুয়াজ্জিন দেলোয়ার হোসেন (৪৮), জুনায়েদ (১৭), জামাল (৪০), জুবায়ের (৭) ও রাশেদ (৩৪), বাহাউদ্দিন (৫৫), নিজাম (৪০) ও রাসেল (৩৪)। বাকি ৪ জনের নাম এখনও জানা যায়নি।

১৬ জনের মরদেহ হস্তান্তর

মসজিদে বিস্ফোরণে নিহত ১৭ জনের মধ্যে ১৬ জনের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ সদর থানা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদ বারিক শনিবার বিকাল ৬টায় সাংবাদিকদের বলেন, এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে, তাদের ২০ হাজার করে টাকা দেওয়া হয়েছে। এর আগে শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) গোলাম হোসেন খান জানান, স্বজনদের আবেদনের প্রেক্ষিতে শনাক্তের পর বিনা ময়নাতদন্তে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ১৪ জনের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকিগুলো প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

পৃথক চারটি তদন্ত কমিটি

বিস্ফোরণের ঘটনায় জেলা প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস, তিতাস গ্যাস ও ডিপিডিসির পক্ষ থেকে পৃথক চারটি তদন্ত কমিটি গঠনা করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেছে। শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকেই তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করেছে। গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগে সমস্যা-এই দুটি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে প্রাথমিকভাবে তারা কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহেরা ববি। তারা ঘটনার অন্যান্য দিকগুলোও খতিয়ে দেখবেন।

আহতদের চিকিৎসায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশ

শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র (এসি) বিস্ফোরণে আহতদের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে চিকিৎসা দিতে নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। একই সঙ্গে তিনি রোগীদের সব রকম সুবিধা নিশ্চিত করতেও নির্দেশ দিয়েছেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ বিভাগ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী আহতদের চিকিৎসার খোঁজ-খবর নিয়েছেন এবং এ বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দিয়েছেন।

সর্বোচ্চ চিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে: স্বাস্থ্য সচিব

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব আবদুল মান্নান বলেছেন, ‘বার্ন ইউনিটের চিকিৎসক, পরিচালক ও উপদেষ্টাদের সঙ্গে আমি বৈঠক করেছি। তাদের বলেছি সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার জন্য। আমাদের চিকিৎসার মধ্যে সর্বোচ্চ দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধদের দেখতে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আমি নিজে ব্যক্তিগতভাবে প্রত্যেক রোগীকে দেখেছি। তাদের যে অবস্থা আমরা এমনটা বলতে পারবো না যে তারা প্রত্যেকে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে যাবে। তবে এইটুকু আমরা বলতে পারি আমাদের বাংলাদেশে যতটুকু চিকিৎসা ব্যবস্থা আছে এই উন্নত হাসপাতালে তার সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।’

তদন্ত কমিটির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং তারা কাজ করছে। আমরা যতটুকু শুনেছি তারা ঘটনার সূত্রপাত আইডেন্টিফাই করেছে এবং গ্যাস পাইপের লিক কোনও জায়গা থেকে বের হয়েছে তাও জানা গেছে। তদন্ত শেষ হওয়ার পর জানা যাবে কেন এ ঘটনা ঘটেছে। জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে শুনেছি তদন্ত অব্যাহত আছে, আশা করি দ্রুতই আপনারা জানতে পারবেন।’

স্বজনদের জন্য পুলিশের হটলাইন

এসি বিস্ফোরণের ঘটনায় আহত ও নিহতদের সহায়তায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে একটি জরুরি সহায়তা কেন্দ্র খোলা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসেনর পক্ষ থেকে এই সহায়তা কেন্দ্র খোলা হয়েছে। স্বজনরা এখান থেকে সব ধরনের তথ্য ও সহযোগিতা পাবেন। এছাড়া নিহতদের মরদেহ হস্তান্তরের বিষয়ে স্বজনদের একটি হটলাইন খুলেছে পুলিশ। শনিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিনের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়। মরদেহ গ্রহণ ও হস্তান্তরের জন্য স্বজনদের এই ০১৭৩২৮৯২১২১ নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

খোঁজ রাখছে ধর্ম মন্ত্রণালয়

এসি বিস্ফোরণের ঘটনায় আহত মুসল্লিদের চিকিৎসার বিষয়ে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় খোঁজ খবর রাখছে বলে জানিয়েছেন সচিব ড. নুরুল ইসলাম। মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনায় মুসুল্লিদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করে তিনি। এছাড়া মারা যাওয়া মুসল্লিদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

সব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ সংযোগ ও এসির অবস্থা পরীক্ষা করার নির্দেশ

মসজিদে এসি বিস্ফোরণের ঘটনায় তিতাস তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এ কমিটি পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে। পাশাপাশি সব বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির আওতাধীন এলাকায় মসজিদ-মন্দির ও অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ সংযোগ ও এসির অবস্থা পরীক্ষা করার জন্য নির্দেশ দিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ। এদিকে মসজিদে এসি বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনায় গভীর শোক ও দুঃখ শোক প্রকাশ করেছেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাতে এশার নামাজের সময় এ বিস্ফোরণ ঘটে। ফরজ নামাজের মোনাজাত শেষে অনেকে সুন্নত ও অন্য নামাজ পড়ছিলেন। এসময় মসজিদের ভেতরে প্রায় ৪০ জনের মতো মুসল্লি ছিলেন। বিস্ফোরণে তাদের প্রায় সবাই দগ্ধ হন।