গৃহবন্দীর জবানবন্দী-২৬

এম আবু সিদ্দিক এম আবু সিদ্দিক

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক

প্রকাশিত: ৬:০৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৯, ২০২০ | আপডেট: ৮:৪২:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৯, ২০২০
গৃহবন্দীর জবানবন্দী-২৬

গতকাল গৃহবন্দীর জবানবন্দী–২৫ লিখছিলাম । দুপুর ১- ২৪ মিনিটে উপকূলীয় সাংবাদিকতায় তারুণ্য দীপ্ত মুখ স্নেহাস্পদ আবু সিদ্দিক ফোন করলে অনেক বিষয় কথা হয়। সাংবাদিকতার নানান বিষয়, করোনা পরিস্হিতিতে চরফ্যাসন প্রেসক্লাবের ভূমিকা, করোনা মোকাবিলায় চরফ্যাসনের অবস্হান, ত্রাণ বিতরণে এমপি জ্যাকব মহোদয়ের তৎপরতা এবং উদারতা, প্রতিথযশা সাংবাদিক আবু সিদ্দিক আমার ধারাবাহিক হোম কোয়ারেন্টাইন জার্ণাল গৃহবন্দীর জবানবন্দীর একজন নিয়মিত পাঠক ইত্যাদি প্রসংগ নিয়ে আলোচনা হয় । আজকের গৃহবন্দীর জবানবন্দীতে সে সব কথা প্রাধান্য পাবে।

চরফ্যাসন প্রেসক্লাবের ইতিহাস প্রায় তিন যুগের । মফস্বলীয় সাংবাদিকতায় এই প্রতিষ্ঠান গৌরবের সাথে সমুজ্জ্বল ভূমিকা রাখছে। দক্ষিণ ভোলায় সাংবাদিকতার পথিকুৎ সাবেক জাতীয় সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম ১৯৯১ সালের ২৬ অক্টোবর ভোলা জেলার দ্বিতীয় এবং চরফ্যাসনে প্রথম সাপ্তাহিক উপকূল পত্রিকা প্রকাশ করে সাংবাদিকতার ক্ষেত্রকে উর্বর করে গেছেন। আমার সৌভাগ্য হয়েছে সাপ্তাহিক উকূলের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক হয়ে এক যুগ দায়িত্ব পালন করার। পিতার অবতর্মানে সাপ্তাহিক উপকূলের নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব পত্রিকার হাল ধরে সাংবাদিকতার গতিকে সচল রেখেছেন। ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জ্যাকব সংসদ সদস্য প্রার্থী ছিলেন। নির্বাচনের ফলাফল এবং নির্বাচন উত্তর পরিবেশ সবার জানা। সাপ্তাহিক উপকূল পত্রিকা অফিস ভাংচুর, লুটপাট, বোমা নিক্ষেপ, পত্রিকার সংগ্রহ কপি লুটপাট করা হয়।

সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য সাংবাদিকবৃন্দ আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব কে চরফ্যাসন প্রেসক্লাবের সভাপতি নির্বাচিত করেন। পরবর্তী সময় একটানা পাঁচ বছর চরফ্যসন প্রেসক্লাবের সভাপতি হওয়ার সুযোগ আমার হয়। মনে পড়ে ১৯৮৭ সালে কলেজে চাকুরীর প্রথম মাসের বেতন চরফ্যাসন প্রেসক্লাবে অনুদান করেছিলাম। জ্যাকব জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে চরফ্যাসন প্রেসক্লাবের অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে সাংবাদিকতার প্রতি তাঁর দরদ বোধের স্বাক্ষর রেখেছেন। সাপ্তাহিক উপকূলের সাথে জড়িত অনেক সাংবাদিক আজ জাতীয় পর্যায়ে সাংবাদিকতায় স্বীয় প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। সাপ্তাহিক উপকূলের বার্তা সম্পাদক চরফ্যাসন প্রেসক্লাবের দিকপাল আবুল হাসেম মহাজন এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মনির আহমেদ শুভ্র সভাপতি সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে সাংবাদিকতার ক্ষেত্রকে উর্বর রেখেছেন। আজকে করোনা অভিযানে চরফ্যাসন প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা মাঠ পর্যায়ে বিশেষ ভূমিকা রাখছেন। হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে তাদেরকে সাধুবাদ জানাই।

করোনার প্রভাবে কর্মহীন মানুষের জীবনের চাকা সচল রাখার জন্য সারা দেশে ত্রাণ বিতরণ অব্যহত রয়েছে। সরকারি বেসরকারি পর্যায়, সামাজিক সাংস্কৃতিক স্বেচ্ছাসেরী সংগঠন এবং ব্যক্তি পর্যায় প্রতিদিন কর্মহীন মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম চলছে। উপকূলীয় জনপদের সূর্য সন্তান জ্যাকব সাধারন মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরনের পাশাপাশি অপ্রকৃতিস্হ, ভবঘুরে যাদের পথেই জীবন,পথেই ঠাঁই, জানা নেই নিজের নাম পরিচয়, নেই আত্মীয় স্বজনের পরিচয়। এসব মানুষগুলো স্কুল কলেজের বারান্দায়, শহীদ মিনার চত্বরে, ফুটপাতে, বাসস্ট্যান্ড, লন্চঘাট টার্মিনালে রাত্রি কাটায়। আর দিনের বেলায় হোটেল রেস্তোরার উচ্ছিষ্ট, ডাস্টবিনের ফেলা খাদ্য, ফুটপাতের চায়ের দোকান কিংবা পথচারীর সাহায্যে ক্ষুধা নিবারন করে। করোনার কারনে তাদের গতানুগতিক জীবনের ছন্দপতন ঘটেছে।

অনুরুপ ভাবে পথ কুকুর যারা প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষার সহায়ক। পথিকের কিংবা রেস্তরার ফেলা পচাগলা খেয়ে বেঁচে থাকে। এই প্রানীগুলো আমাদের বাসা বাড়ী পাহাড়া দেয় সহজ লভ্যতায়। মনিবের সাথে কিংবা পথচারীর সাথে বেইমানী করেনা। বাজারের কুকুরগুলো বেতনভুক্ত টহলদারের সাথে রাত জেগে পাহাড়া দেয়। এরা ছিল সকলের ত্রাণ কার্যক্রম কিংবা সকলের ভাবনার অগোচরে। করোনার কারনে এই প্রানীকুল পরিত্যক্ত খাবর থেকে বন্চিত হয়ে দিকবিদিক ঘুরছে। দুই দিন পর অনাহারে অতিষ্ট হয়ে এরা পথেঘাটে মানুষ কামড়াত।

প্রকৃতি প্রেমিক স্বপ্নচারী জননেতা জ্যাকব অপ্রকৃতিস্হ সেই সব মানুষের তালিকা করে বিশেষ টীম তৈরী করে তাদের নিয়মিত খাদ্যের ব্যবস্হা করেছেন এবং পৌর সদর, বড় বাজারের কুকুরগুলো যাতে অভূক্ত না থাকে সেই ব্যবস্হা করে এক অনণ্য অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত স্হাপন করেছেন। লবন আর চিনি দেখতে একই রকম; পার্থক্য শুধু স্বাদে। মানুষ আর অমানুষ দেখতে একই রকম; পার্থক্য শুধু মনুষ্যত্ব বোধের উম্মোচনে।

উপকূলীয় জনপদে তিনি হাজার হাজার কেটি টাকার উন্নয়ন করেছেন। অনেক ধর্মীয় প্রতিষ্টান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, এতিম খানা, রাস্তা ঘাট পুল কালভার্ট, অফিস আদালত, বন্যার্ত মানুষের পাশে দ্বাড়ানো, সাধারণ মানুষের চিকিৎসা সেবা সহ জনকল্যাণ মূলক অনেক কাজ করেছেন। কোনটি লোক দেখানো নয়। দৃশ্যমান সেসব উন্নয়েনের চেয়ে তাঁর এই ব্যতিক্রমী মানবিক গুনাবলীর কাজগুলো আমাদের ভাবনা চিন্তাকে নতুন ভাবে জাগ্রত করেছে। জ্যাকব মহোদয়ের এই উদ্যোগ সরজমিনে একান্ত ভাবে বাস্তবায়ন করছেন বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মনির উদ্দিন চাষী এবং সাংবাদিক আবু সিদ্দিক। তাদেরকে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ।

আজ সকাল দশটায় আমিনাবাদ হাইস্কুল মাঠে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন শান্তি সমাজ কল্যাণ সংঘের ত্রাণ বিতরন অনুষ্ঠানে উপস্হিত থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আমার ছাত্র আমিনাবাদের কৃতি সন্তান সংগঠনের সম্পাদক এসএ টিভির সন্চালক সাইফুল ইসলাম নয়ন।

এসময় উপস্হিত ছিলেন চরফ্যাসন উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মো: রুহুল আমিন। যিনি জাতির এই ক্রান্তিকালে সরকারের নীতিমালা বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে।নিরলস কাজ করে প্রশংসা কুড়িয়েছেন। উপস্হিত ছিলেন চরফ্যাসন উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম ভিপি, আমিনাবাদ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন, আমিনাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মো: হোসেন মাতাব্বর,  এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং শান্তি সমাজ কল্যাণ সংঘের নেতৃবৃন্দ। এই সংগঠন ইতোমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে করোনা উপলক্ষে কর্মহীন মানুষকে ত্রাণ দিয়েছে।

বেলা ১১টায় চরফ্যাসন পৌর কার্যালয়ের মিলনায়তনে মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য জ্যাকব মহোদয়ের ব্যক্তিগত ত্রাণ বিতরণ কমিটির সভায় যোগদান করি । সভায় দলমত নির্বিশেষে সকল অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরনের কার্যক্রম অব্যহত রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় । (চলবে)

লেখকঃ কায়ছার আহমেদ দুলাল।

অধ্যক্ষ, চরফ্যাসন সরকারি কলেজ।