‘পাওনা টাকা না পেয়ে’ গায়ে আগুন দিয়ে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যার চেষ্টা

প্রকাশিত: ৯:১৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২২ | আপডেট: ৯:১৩:অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২২
‘পাওনা টাকা না পেয়ে’ গায়ে আগুন দিয়ে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যার চেষ্টা

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকায় কাজী আনিস (৫০) নামে এক ব্যবসায়ী নিজের গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করেছে শাহবাগ থানা-পুলিশ।

সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ তথ্য নিশ্চিত করেন শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মওদুত হাওলাদার। পাওনা টাকা না পেয়ে তিনি গায়ে আগুন দেন বলে আত্মহত্যার চেষ্টাকারী ব্যবসায়ীর এক বন্ধু জানিয়েছেন।

কাজী আনিস কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পান্টি গ্রামের বাসিন্দা। তিনি ঠিকাদারির ব্যবসা করেন বলে জানা গেছে।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ডপ্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক চিকিৎসক এস এম আইউব হোসেন জানিয়েছেন, দগ্ধ কাজী আনিসের শরীরে ৯০শতাংশ পুড়ে গেছে তার অবস্থা খুবই আশঙ্কা জনক।

পুলিশের রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার হারুন অর রশিদ বলেন, ‘প্রেসক্লাবের ভেতরে এক ব্যক্তি গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়েছে। তবে কী কারণে তিনি আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন, তা এখনো জানতে পারিনি।’

হাসপাতলে মো. আলী নামে আত্মহত্যার চেষ্টাকারী দগ্ধ ব্যবসায়ীর বন্ধু জানান, হেনোলাক্স কোম্পানির কাছে ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা পাবেন তিনি। কিন্তু কোম্পানি পাওনা টাকা দিচ্ছে না। এ নিয়ে এর আগে মানববন্ধন করেছেন তিনি, কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। আজ গায়ে আগুন দিয়েছেন।

হেনোলাক্স কর্তৃপক্ষের বক্তব্য জানতে প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে দেওয়া ফোন নম্বরে যোগাযোগ করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

দগ্ধ গাজী আনিসের পরিচিত তুহিন নামে এক ব্যক্তি জানান, ব্যবসার জন্য বেশ কয়েক বছর আগে একটি কোম্পানির মালিকের স্ত্রীকে এক কোটি ২৬ লাখ টাকা দেন আনিস। এই টাকা ফিরে পাওয়ার জন্য তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের ৩য় তলায় সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন গত মে মাসের দিকে।

তিনি আরো জানান, ওই কোম্পানির মালিকের স্ত্রীর বিরুদ্ধে চেক ডিজঅনারের মামলাসহ হুমকি-ধামকির মামলাও আছে কুষ্টিয়া জেলা থানা এলাকায়। গাজী আনিস একজন কবি, তার ১০ থেকে ১২টি কবিতার বই বেরিয়েছে।

আনিসের ভাই নজরুল ইসলাম জানান, তাদের বাবার নাম মৃত ইব্রাহীম হোসেন বিশ্বাস। ৯১-৯৫ সাল পর্যন্ত তিনি কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। তার স্ত্রী স্বপ্না। ৩ মেয়ের জনক তিনি। ব্যবসার পাশাপাশি চাকরিও করতেন তিনি। ওই কোম্পানির কাছে ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা পান। এজন্য কয়েক দফায় সংবাদ সম্মেলনও করেছেন। কিন্তু টাকা না পাওয়ায় তিনি আজ এই ঘটনা ঘটিয়েছেন।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, মুখমণ্ডলসহ কাজী আনিসের শরীরের বিভিন্ন অংশ দগ্ধ হয়েছে।