মনপুরায় নিখোঁজ মহিষের কাটা মাথা ও চামড়া উদ্ধার

ছালাহউদ্দিন ছালাহউদ্দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৯:০৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২২ | আপডেট: ৯:০৪:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২২
মনপুরায় নিখোঁজ মহিষের কাটা মাথা ও চামড়া উদ্ধার

ভোলার মনপুরায় নিখোঁজ মহিষের কাটা মাথা ও পরিত্যক্ত হাড়গোড় উদ্ধার করা হয়েছে। ২টি মহিষ জবাই করে মাথা কেটে ফেলে রেখে মাংস নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। মহিষের মাথা কাটার ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যকর অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। গো-খাদ্যের জন্য উপজেলার বিভিন্ন চরে থাকা হাজার হাজার মহিষ মালিকদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে।

খোঁজ নিয়ে ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, গত মঙ্গলবার (১১জানুয়ারী) দুপুর ১২ টায় উপজেলার ৪নং দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়ন সংলগ্ন বাসনভাঙ্গা কেঁওড়া বাগান থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় মহিষের ২টি মাথা, চামড়া ও হাড়গোড় উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও কয়েকমাস পূর্বে উপজেলার দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়নের পাতালিয়া চর থেকে ২টি মহিষের কাটা মাথা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান মহিষ রাখালরা।

এদিকে গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন মহিষ মালিকের ৬টি মহিষ নিখোঁজ রয়েছে বলে জানান মহিষ বাতাইনারা। নিখোঁজ ৬টি মহিষের মধ্যে ২টির কাটা মাথা, চামড়া ও পরিত্যক্ত অবস্থায় হাড়গোড় পাওয়া গেছে। মহিষের কান ও চামড়ার বিভিন্ন চিহ্ন দেখে শনাক্ত করেছেন নিখোঁজ মহিষ দুইটির মালিকরা। এখন পর্যন্ত নিখোঁজ ৪টি মহিষের খোঁজ পাওয়া যায়নি। উদ্ধার করা মাথা চামড়া ও হাড়গোড় দেখে শনাক্তকারী মহিষ মালিকরা হচ্ছেন দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা আলমগীর হোসেন রাড়ী ও ২নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ মহিউদ্দিন।

শনাক্তকারী মহিষ মালিক আলমগীর রাড়ী ও মহিউদ্দিন জানান, গত সোমবার থেকে মহিষ নিখোঁজের খবর পাই বাতাইনিয়াদের (রাখাল) কাছ থেকে। তার পর থেকে বিভিন্ন চরে আমরা ও বাতাইনিয়ারা খোঁজাখুজি করি। পরে বাসনভাঙ্গা চর থেকে খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে মহিষ দুইটির মাথা, চামড়া ও হাড়গোড় উদ্ধার করি। মহিষ জবাই করে মাথা, চামড়া ও হাড়গোড় রেখে মাংশ নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। এছাড়া স্থানীয় মহিষ মালিক নজরুল, মহিউদ্দিন, মালেক দেওয়ান ও আবুল কালামের ৪টি মহিষ এখনও নিখোঁজ রয়েছে।

এব্যাপারে মনপুরা থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইব্রাহিম হোসেন নয়ন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এব্যাপারে দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ অলিউল্যাহ কাজল বলেন, বিষয়টি খুবই অমানবিক। বিভিন্ন সময়ে বহিরাগত চোর চক্র বিভিন্ন চর থেকে মহিষ চুরি করে নিয়ে যায়। এই ঘটনায় আমরা আতঙ্কিত। এই বিষয়ে খোঁজ খবর নিচ্ছি। ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে।