গ্যাসের চুলা থেকে আগুনে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১২০০ ঝুপড়ি পুড়ে ছাই

প্রকাশিত: ১০:১৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০২২ | আপডেট: ১০:১৮:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০২২
গ্যাসের চুলা থেকে আগুনে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১২০০ ঝুপড়ি পুড়ে ছাই

কক্সবাজারের উখিয়ার শফিউল্লাহ কাটা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে বারোশত রোহিঙ্গা ঝুপড়ি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। তবে, এতে হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছে ফায়ার সার্ভিসের আটটি ইউনিট।

রবিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নের শফিউল্লাহ কাটা এলাকার ১৬ নম্বর রোহিঙ্গা শিবিরের বি-ব্লকে এই অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়।

কক্সবাজার ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়। ইতিমধ্যে বারোশত ঝুঁপড়ি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে বলে রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন।

ঘটনাস্থল থেকে স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল বশর, আবদুল হক ও রোহিঙ্গা নেতা আবদুর রহিম বলেন ফায়ার সার্ভিস ও রোহিঙ্গাদের সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

রোহিঙ্গা শিবিরে দায়িত্বরত ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. কামরান হোসেন বলেন, বি-ব্লকের মোহাম্মদ আলী(৩৫) এর ঘর হতে গ্যাসের চুলার মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত হয় বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়। পরে আগুন ক্যাম্পের ব্লক-বি ও ব্লক-সি এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে তৎক্ষণাৎ ৮ এপিবিএনর অফিসার ফোর্স এবং ফায়ার সার্ভিসের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়। এখন পর্যন্ত হতাহতের কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। প্রায় ১২০০ ঘর পুড়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়।

এর আগে গত ২ জানুয়ারি উখিয়ার বালুখালী ২০ নম্বর ক্যাম্পে জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা (আইওএম) পরিচালিত করোনা হাসপাতালে আগুন লাগে। এতে কেউ হতাহত না হলেও হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারের ১৬টি কেবিন পুড়ে যায়।

এ ছাড়া গত বছরের ২২ মার্চ উখিয়ার বালুখালীতে ক্যাম্পে লাগা আগুনে মৃত্যু হয় ডজনাধিক রোহিঙ্গার। পুড়ে যায় ১০ হাজারের অধিক ঘর।