মনপুরায় কোরআন প্রেমীদের সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান

ছালাহউদ্দিন ছালাহউদ্দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৬:৪৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০২১ | আপডেট: ৬:৪৩:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০২১
মনপুরায় কোরআন প্রেমীদের সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান

কুমিল্লা শহরের নানুয়া দীঘির পাড় পূজা মন্ডবে পবিত্র আল-কোরআনকে অবমাননাকারী জড়িতদের শাস্তির দাবীতে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মনপুরার সর্বস্তরের তৌহিদী জনতার ব্যানারে প্রতিবাদে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সমাবেশ শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শামীম মিঞার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরাবার স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় হাজিরহাট এতিম খানা ও নুরানী মাদ্রসার সামনে উপজেলা চত্বরে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে মুসলিম জনতা এসে সমাবেশে যোগ দেয়। হাজার হাজার জনতার মুহুর্মুহু “ নারায়ে-তাকবির, আল্লাহু আকবার, আল কোরআনের অপমান সইবনারে মুসলমান” স্লোগানে বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে জনসমুদ্রে পরিণত হয়।

তৌহিদ জনতার (মুসলমানের) পক্ষে আল-কোরআন অবমাননাকারী প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা জাতীয় ঈমাম সমিতির সভাপতি মাও মোঃ মফিজুল ইসলাম।

সভায় বক্তব্য রাখেন দক্ষিন সাকুচিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ অলিউল্যাহ কাজল, হাজির হাট ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নিজামউদ্দিন হাওলাদার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার আবুল কাশেম মাতাব্বর, চরফৈজুদ্দিন বহুমুখী মাদ্রাসার প্রধান মাও মোঃ নেছারউদ্দিন, হাজিরহাট বাজার মার্কাস মসজিদ প্রেস ঈমাম মাও মুফতি মোঃ ইউসুফ, মাও মোঃ সিহাবউদ্দিন, হাফেজ মাও আব্দুল মতিন ফয়েজি প্রমুখ।

বিশ্ব মানবতার পবিত্র আল-কোরআন অবমাননাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে গ্রেফতার করার দাবী জানান বক্তারা। সমাবেশে বক্তারা আরও বলেন, বাংলাদেশে শতকরা ৯৫% মুসলমান। মুসলমানের ধর্ম পবিত্র আল-কোরআন। গত ১৩ই অক্টোবর কুমিল্লা শহরের নানুয়া দীঘির পাড় পূজা মন্ডবে “হনুমান” দেবতার পায়ের উপর পবিত্র আল -কোরআন রেখে অপমান করা হয়েছে। যাহা বিশ্বের মুসলমানের অন্তরে আঘাত হেনেছে। উপজেলার সর্বস্তরের মুসলমানের পক্ষে সরকারের প্রতি আবেদন করছি উক্ত ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির প্রদান ও মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার জোর দাবী করছি।
সমাবেশ শেষে প্রধানমন্ত্রীর বরাবর একটি স্মারকলিপি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শামীম মিঞার কাছে হস্তান্তর করেন ইমাম সমিতির নেতারা। স্মারকলিপিতে দ্রুত আইনের আওতায় এনে দোষীদের গ্রেফতার, ফাঁসি প্রদান, পাশাপাশি ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা যাতে পূনরাবৃত্তি না হয় সেজন্য নের্তৃবৃন্দকে সজাগ থাকাসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের দাবী জানান তারা।

এব্যাপরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শামীম মিঞা বলেন, আমি স্মরকলিপি পেয়েছি। আমি জেলা প্রশাসক মহোদয়ের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরাবর পৌঁছানোর ব্যাবস্থা গ্রহণ করছি।