তজুমদ্দিনে কোরবানীর হাটে ভেটেরিনারী মেডিকেল টিম

প্রকাশিত: ৭:২৬ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২১ | আপডেট: ৭:২৬:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২১
তজুমদ্দিনে কোরবানীর হাটে ভেটেরিনারী মেডিকেল টিম

ভোলার তজুমদ্দিনে বিভিন্ন কোরবানীর পশুর হাট-বাজারে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের উদ্যোগে ভেটেরিনারী মেডিকেল টিম বাজার মনিটরিং ও প্রাণিস্বাস্থ্যসেবা প্রদান করছেন।

ক্ষতিকর রাসায়নিক/ষ্টেরয়েড (হরমোন) ব্যবহার করে মোটাতাজাকরণ গরু চিহ্নিতকরণ এবং যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা, হাটে হঠাৎ গবাদিপশু আসুস্থ হয়ে পড়লে চিকিৎসা সেবা প্রদান, অনলাইনে বিক্রির জন্য গবাদিপশুর ছবি আপলোড করা ও প্রাণিসম্পদ বিষয়ক বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করা গঠিত টিমের প্রধান কাজ।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. পলাশ সরকারের (পিএএ) নেতৃত্বে গঠিত টিমের অন্যান্য সদস্যরা হলেন, প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ডা. মোঃ নাহিদুল ইসলাম, উপসহকারী প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা, প্রাণিসম্পদ মাঠ সহকারী, ভেটেরিনারী মাঠ সহকারী, কৃত্রিম প্রজনন টেকনিশিয়ান, ভলান্টিয়ার ভ্যাক্সিনেটর।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. পলাশ সরকার (পিএএ) বলেন, পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে কোরবানীর বাজার সামনে রেখে ক্রেতা-বিক্রেতার জন্য আমাদের এ কার্যক্রম। আমাদের এ কার্যক্রম সুন্দরভাবে পরিচালনার জন্য ঈদের আগের দিন পর্যন্ত পশুর হাটগুলোকে পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে অসুস্থ, রোগাক্রান্ত কিংবা ক্ষতিকর রাসায়নিক হরমোন ব্যবহার করে মোটাতাজাকৃত গরু বিক্রয় বন্ধ হবে। এখন পর্যন্ত পশুর হাটগুলোতে কোন অসুস্থ ও ক্ষতিকর হরমোন প্রয়োগ করা গরু ছাগল পাওয়া যায়নি। হাট-বাজারগুলোতে মেডিকেল টিম পরিচালনা করায় ক্রেতা-বিক্রেতারা সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন।

তিনি আরো জানান, উপজেলায় এ বছর ৪ হাজার ৯৩৪টি গবাদিপশু হৃষ্টপুষ্টকরণ করা হয়েছে। কিন্তু কোরবানির জন্য চাহিদা রয়েছে ৮ হাজার ৬০৩টি পশুর।