নাসিরকে প্রধান আসামি করে সাভার থানায় পরীমনির মামলা

প্রকাশিত: ১:০৫ অপরাহ্ণ, জুন ১৪, ২০২১ | আপডেট: ১:০৫:অপরাহ্ণ, জুন ১৪, ২০২১
নাসিরকে প্রধান আসামি করে সাভার থানায় পরীমনির মামলা

ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন (ইউ) মাহমুদসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন চিত্রনায়িকা পরীমনি।

সোমবার সাভার মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়। রূপনগর থানার মাধ্যমে মামলাটি দায়ের করেন তিনি।

মামলায় নাসির উদ্দিন ও তার বন্ধু অমির নাম উল্লেখ করে আরও ৪ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। মামলা নম্বর ৩৮।

ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহহিল কাফি মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

থানা সূত্রে জানা গেছে, সকালে রূপনগর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন পরীমনি। পরে রূপনগর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুক মামলার অভিযোগটি সাভার থানায় নিয়ে যান।

এর আগে রবিবার রাতে নিজের বনানীর বাসায় সংবাদ সম্মেলনে পরীমনি বলেন, চার দিন আগে উত্তরা বোট ক্লাবে নাসির ইউ মাহমুদ নামে এক ব্যক্তি তাকে ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টা চালান। তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হয়।

তিনি জানান, তার ব্যক্তিগত কস্টিউম ডিজাইনার জিমির বন্ধু ব্যবসায়ী অমির আমন্ত্রণে সেদিন জেমিকে সঙ্গে নিয়ে উত্তরা বোট ক্লাবে যান। সেখানে তাকে পানীয় গ্রহণ করতে বলা হয়। এরপর তার সঙ্গে অশালীন আচরণ শুরু করেন নাসির ইউ মাহমুদ। একপর্যায়ে শুরু হয় মারধর। এ সময় অমিকে নীরব থাকতে দেখা যায় বলেও দাবি করেন পরীমনি।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সেখানে অজ্ঞান হয়ে যান পরীমনি। এরপর রাত ২টা থেকে আড়াইটার দিকে তিনি সুস্থ হয়ে বনানী থানায় যান।

পরীমনি বলেন, ‘আমি সুইসাইড করার মতো মেয়ে নই। আমি সুইসাইড করতে চাই না। তারপরও যদি আমার মৃত্যু হয়, তাহলে তার জন্য সেই ব্যক্তিরা দায়ী থাকবে।’

আক্ষেপ করে এই জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা বলেন, ‘গত চার দিন ধরে আমি সাধারণ মেয়ে হিসেবে দ্বারে দ্বারে বিচার চেয়েছি, কিন্তু পাইনি। আজ তাই সংবাদ সম্মেলন ডেকেছি। আমি আজ বুঝতে পারছি, সাধারণ মেয়েদের অবস্থা কী হয়।’

এর আগে রাত ৮টার দিকে পরীমনি নিজের ভেরিফায়েড ফেইসবুক পেজে তাকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলা চিঠি লিখেন। চিঠিতে তিনি প্রধানমন্ত্রীর নিকট ন্যায্য বিচার প্রার্থনা করেন।