চরফ্যাসনে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত: ৭:৩৫ অপরাহ্ণ, জুন ৮, ২০২১ | আপডেট: ৭:৪৭:অপরাহ্ণ, জুন ৮, ২০২১
চরফ্যাসনে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

ভোলার চরফ্যাসনে জেসমিন (২০) নামের এক গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে শশীভূষণ থানা পুলিশ।

মঙ্গলবার (৮ জুন) সকাল ৯টায় উপজেলার এওয়াজপুর এলাকায় গৃহবধূর শ্বশুরবাড়ির পুকুর পাড়ে গাছের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

গৃহবধূ জেসমিন ওই গ্রামের আবুল কালামের স্ত্রী। এদিকে লাশ উদ্ধার পর থেকে গৃহবধূর স্বামী পলাতক রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চরফ্যাসন উপজেলার আবদুল্লাহপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা জাহের বেপারির মেয়ে জেসমিনের (২০) সাথে এওয়াজপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের শামছুল মাঝির ছেলে আবুল কালামের প্রায় ১০ মাস আগে বিয়ে হয়।

প্রতিবেশিরা জানান, বিয়ের পর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই দাম্পত্য কলহ লেগেই থাকতো। তাদের মধ্যে কি কারনে ঝগড়াঝাটি হত কেউ বলতে পারেনা।

এলাকাবাসির ধারনা, দীর্ঘদিনের পারিবারিক কলহের জের ধরে সোমবার মধ্যরাতে যেকোন সময়ে গৃহবধুকে পরিবারের লোকজন শ্বাসরোধে হত্যা করে।

সকালে লোকজন জড়ো হয়ে দেখতে পায় উঠানের পাশে পুকুর পাড়ে একটি গাছের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় গৃহবধূ জেসমিনের মরদেহ। পরিবারের লোকজন বলছে পারিবারিক কলহের কারনে গৃহবধু জেসমিন আত্নহত্যা করেছে।

প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারনা এটা কোনভাবে আত্নহত্যার ঘটনা হতে পারেনা। গৃহবধুর গলায় বিপরীতমূখী লাগানো রশির ঝুলন্ত দৃশ্য রহস্যময়।

শশীভূষণ থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, আজ সকালে পুলিশ ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা মর্গে প্রেরণ করেছে। এই ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে শশীভূষণ থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের হয়েছে।ময়না তদন্তের প্রতিবেদন আসার পর এই ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদঘাটিত হবে। এই ঘটনায় কাউকে আটক করা হয়নি। তবে জেসমিনের পরিবারের কেউ থানায় মামলার অভিযোগ করেনি।